যে ৯ টি কাজ আপনাকে প্রফেশনাল কনটেন্ট রাইটার হতে সাহায্য করবে !

লিখেছেনঃ মোঃ শফিকুল ইসলাম | টি মন্তব্য | বিভাগঃ কনটেন্ট ডেভেলপমেন্ট

বর্তমানে প্রফেশনাল কনটেন্ট রাইটারদের চাহিদা অনেক বেশি। ওয়েব জগতের সব সেক্টরগুলোতে কনটেন্টের চাহিদা দিন দিন বাড়ছে। তাছাড়া বাড়ছে চাকরির ক্ষেত্র। বেতনের অংকটাও বেশ ভাল। কনটেন্ট রাইটারদের জন্য মার্কেটপ্লেস গুলোতেও (oDesk, Elance, Freelance, Fiverr, People Per Hour etc.) প্রচুর পরিমাণে কাজ আছে। কয়েকজনকে কথা গত পোস্টেও বলেছিলাম যারা ঘণ্টা প্রতি ২০-২৮ ডলারে কাজ করছে। মার্কেটপ্লেস ছাড়াও আরও অনেক উৎস আছে, যেগুলো থেকে কনটেন্ট রাইটিং দিয়ে ভাল উপার্জন করা সম্ভব।

একজন প্রফেশনাল কনটেন্ট রাইটারের প্রধান কাজ সৃজনশীল কনটেন্ট সৃষ্টি করা বা লেখা। সৃজনশীল কনটেন্ট লেখার সময় ২টি বিষয় গুরুত্ব দিতে হবে।

  • নিজে যা বলতে চেয়েছি তা পরিপূর্ণ ভাবে বলা।
  • পাঠকের খোরাক মেটানো। অর্থাৎ পাঠক লেখা পড়ে যা পেতে চেয়েছিলো, তা দিতে পারা।

এই দুইটা কাজ করতে সক্ষম হলে, আপনি একজন প্রফেশনাল কনটেন্ট রাইটার হতে পারবেন। সৃজনশীলতা এবং পাঠকের প্রয়োজন পূরণে সক্ষম কনটেন্ট রাইটারদের চাহিদা চারদিকে।
ইনকামের কথা চিন্তা না করে, কিভাবে একজন সৃজনশীল, দক্ষ এবং প্রফেশনাল কনটেন্ট রাইটার হওয়া যায়, শুরুতে ওটা নিয়ে ভাবুন। দক্ষ হলে ইনকাম তো আসবেই।

তাই আজকে, আপনাদেরকে ৯ টি কাজ নিয়মিত অনুশীলন করার জন্য পরামর্শ দিচ্ছি। আশা করি, এই কাজগুলো নিয়মিত অনুশীলন করলে একজন প্রফেশনাল কনটেন্ট রাইটার হওয়া আপনার জন্য সময়ের ব্যাপার মাত্র।

  1. ইংরেজি লেখায় স্বাচ্ছন্দ্য অনুভব করুন। নিয়মিত ইংরেজী বিষয়ের উপর লেখা পড়া করুন। ইংলিশ গ্রামারের দিকে একটু চোখ বুলান। স্পেলিং, পাংচুয়েশন, এবং রিড অ্যাবিলিটির প্রতি নিয়মিত সামান্য নজর রাখুন। দ্রুত এবং সঠিকভাবে কনটেন্ট লিখতে এগুলো আপনাকে সাহায্য করবে।
  2. ফ্রেশ এবং ইউনিক কনটেন্ট লেখার চেষ্টা করুন। এজন্য আপনাকে দুইটা কাজ করতে হবে। ভাল উৎস থেকে টপিকটির বিষয়বস্তু সংগ্রহ করুন। তারপর, কনসেপ্ট ক্লিয়ার না হওয়া পর্যন্ত ওটা ভালভাবে পড়াশুনা করুন।
  3. প্রতিদিন অন্তত একটি কনটেন্ট লেখার জন্য মনকে স্থির করুন। নিরিবিলি একটি জায়গাতে (হতে পারে বাসা অথবা অফিস) পড়াশুনা এবং লেখার অনুশীলন করুন। কোলাহলপূর্ণ জায়গাতে কখনো সৃজনশীল বা ফ্রেশ কনটেন্ট লেখা সম্ভব না। একটা দৈনন্দিন শিডিউল বা রুটিন তৈরি করুন।
  4. সব ধরনের টপিকের উপর কনটেন্ট লেখার অনুশীলন করুন। এটা বিভিন্ন বিষয়ে লিখতে এবং আরো বেশি প্রফেশনাল হতে আত্মবিশ্বাস সৃষ্টি করবে।
  5. প্রতিদিন রুটিন করে ভালো ভালো ওয়েব সাইট বা রাইটারদের লেখা পড়ুন। তাহলে বুঝতে পারবেন ভালো রাইটারা কিভাবে লেখে।
  6. কিওয়ার্ড, সার্চ ইঞ্জিন এবং এসইও-এর উপর গুরুত্ব দিন। এসব ক্ষেত্রে সামান্য ভুল ব্যবহার সারা দিনের সব পরিশ্রমকে এক নিমিষে পণ্ড করে দিতে পারে। কিওয়ার্ড এবং সৃজনশীলতার সঠিক সমন্বয় আপনার কন্টেন্টকে একটি অসাধারণ আউটপুট দিতে পারে।
  7. কিছু ওয়েব কনটেন্ট কোম্পানির সাথে নিবন্ধন করুন। ওরা আপনাকে কাজ দিবে। ওনাদের এডিটর লেখা চেক করে ভুল হলে ওগুলো ঠিক করার জন্য গাইড দিবে। এভাবে, আপনার স্কিল আরো বৃদ্ধি পাবে। প্রথম দিকে হয়তো কিছু কম আর্ন হবে। কিন্তু, স্কিল বৃদ্ধির সাথে সাথে আপনিও বেশি ডিমান্ড করতে পারবেন।
  8. এখন একটি পোর্টফোলিও তৈরির পালা। পোর্টফোলিওটি আপনার দক্ষতা, অভিজ্ঞতা, এবং প্রফেশনালিসম বায়ারদের কাছে তুলে ধরবে। সমৃদ্ধ পোর্টফোলিওতে, কাজ পাওয়ার বা ইনকামের সম্ভবনা বেশি থাকে। অনেক ওয়েব সাইট আছে, যেখানে আপনি কনটেন্ট দিতে পারেন। কেউ পে করবে, কেউ শুধু রিকগনিশন দিবে। দুইটাই জরুরী। ভাল মানের এবং হাই কোয়ালিটি পোর্টফোলিও তৈরি।
  9. হয়তো সবকিছু পরিকল্পনা মতো হবে না। তাই বলে মনোবল হারানো চলবে না। সাহসের সাথে এগিয়ে চলুন সফলতা আসবেই। কারণ, কথাই আছে, “সাহসীর ভাগ্য সুপ্রসন্ন হয়”।

কোন নিয়মই কাজে আসবে না, যতক্ষণ পর্যন্ত আপনি নিজে চেষ্টা, পরিশ্রম এবং সাধনা না করবেন। আপনাকে অনেক বেশি আত্মপ্রত্যয়ই হতে হবে। অল্প সময়ের মধ্যে সফলতা পাওয়ার তড়িত চেষ্টা পরিহার করতে হবে। কারণ কোন কিছুই রাতা-রাতি হয় না। আমি নিজে তিন বছরের বেশি সময় ধরে কনটেন্ট লিখছি। এখনো বলিনা আমি সাকসেসফুল (সাকচেস হতে আরো সময় লাগবে)। তবে, এর মাধ্যমে ইতোমধ্যে ভালো আর্নিং এবং ক্যারিয়ার পেতে শুরু করেছি।

  • About The Author
  • Social
  • Recent
  • Comments

লেখা-লেখি ভাল লাগে, তাই লেখা-লেখি করি। ভাল লাগাটাই আমার কাছে আসল, কারণ ভালোলাগা থেকেই আসে সফলতা। যদিও পড়াশুনা করেছি এমবিএ, হিসাব বিজ্ঞান, জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় থেকে। বর্তমানে ওয়েব কোডের সাথে আছি কনটেন্ট ডেভেলপার হিসাবে। আমার সাথে যোগাযোগ করতে - ইমেইল ।। ফেসবুক

  • Sorry, this author doesn't have any comments!